বগুড়ায় জুরান আলী হত্যা মামলায় ১ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের কারাদণ্ড

সর্বমোট পঠিত : 43 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

বগুড়ার কাহালুতে জুরান আলী সরকার নামে এক ভ্যানচালককে হত্যার প্রায় এক যুগ পরে এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। এই মামলায় আরও সাত আসামিকে এক বছর করে কারাদণ্ড এবং দু’জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়।


বগুড়ার কাহালুতে জুরান আলী সরকার নামে এক ভ্যানচালককে হত্যার প্রায় এক যুগ পরে এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। এই মামলায় আরও সাত আসামিকে এক বছর করে কারাদণ্ড এবং দু’জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়।

বুধবার দুপুরে বগুড়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ বেগম রুবাইয়া ইয়াছমিন এ আদেশ দেন।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন কাহালুর অঘোর ধোয়া পাড়ার ইউনুস আলী মোল্লা। তিনি হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি।

কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন আফজাল হোসেন ফকির, আশরাফুল সরকার, আতাউর রহমান সরকার, সবুজ সরকার, আজিজুল হক রনি, সিরাজুল হক জনি ও সোহাগ শেখ। এরা প্রত্যেকে অঘোর ধোয়া পাড়ার বাসিন্দা।

নিহত ভ্যানচালক জুরান আলী সরকার একই এলাকার বাসিন্দা ও আসামিদের প্রতিবেশী ছিলেন।
এসব তথ্য নিশ্চিত করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জহুরুল ইসলাম। তিনি জানান, ভ্যানচালক জুরান আলী সরকারের সঙ্গে আসামিদের পারিবারিকভাবে পূর্ব শত্রুতা ছিল। এরজেরে ২০০৭ সালের ১১ নভেম্বর জুরানকে লাঠিসোটা দিয়ে মারধর করেন আসামিরা। এদের মধ্যে ইউনুস আলী লাঠি দিয়ে জুরানের মাথায় আঘাত করেন। এতেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় জুরানের বাবা ছামসুল আলী সরকার বাদি হয়ে কাহালু থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

সাক্ষ্য প্রমাণে হত্যার বিষয়টি উঠে আসায় বিচারক ইউনুস আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। আর সাতজনকে ১৪৩ ও ৩২৩ এই দুই ধারায় এক বছরের সাজা দেয়া হয়। এ ছাড়া মেহেরুন বেগম ও মোছা. বেলী খাতুনকে বেকসুর খালাস দেন বিচারক।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলেন, রায় ঘোষণার পর দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ। এই হত্যা মামলায় আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন রেজাউল করিম মন্টু।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি