শেরপুরে বঙ্গবন্ধু হা-ডু-ডু টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

সর্বমোট পঠিত : 87 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

প্রধান অতিথি বক্তব্যে আলহাজ্ব মোঃ ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি বলেন, আমাদের নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে ২নং চরশেরপুর ইউনিয়নের ভিতরে কাউকে এ টুনামেন্টে দল দেয়া হবেনা। আমাদের চরশেরপুর লোকজন খেলায় যারা খেলতে আসবে বা দেখেতে আসবে আমরা সকলে তাদেরকে সহযোগিতা করব। আমাকে আমার ইউনিয়নের ২০ টা ক্লাব দিবেন আমি সরকারিভাবে নিবন্ধন করে দিব। যেখানে সরকারিভাবে খেলাধুলার সরন্জাম নিয়ে দিতে পারব।


গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহী জনপ্রিয় হা-ডু-ডু এখন নানা কারণে হারিয়ে যাচ্ছে। গ্রামের কাঁচা রাস্তায়, মাঠ, বাগানে বা খোলা স্থানে জমজমাট ও উৎসবমুখর পরিবেশে হতো এ হা-ডু-ডু খেলা।

কিন্তু কালের আবর্তে সেই খেলা এখন আর তেমন দেখা যায় না। তাই জনপ্রিয় এ খেলাটি টিকিয়ে রাখা এবং নতুন প্রজন্মকে উজ্জীবিত করতে শেরপুরে বঙ্গবন্ধু হা-ডু-ডু টুর্নামেন্ট আয়ােজন করা হয়েছে।

শুক্রবার (২১ জুন) বিকেলে শেরপুর সদর উপজেলার ২নং চরেশেরপুর ইউিনয়ন পরিষদের আয়োজনে ধােপাঘাট সেগুন বাগান মাঠে বর্ণাঢ্য আয়োজনে হা-ডু-ডু প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করা হয়েছে। সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ ছানুয়ার হোসেন ছানু এ টূর্ণামেন্টের উদ্বোধন করেন।


উদ্বোধনী খেলায় চরশেরপুর ইউনিয়ন বিবাহিতদলকে চরশেরপুর ইউনিয়ন অবিবাহিতর দল পরাজিত করে সুভ সুচনা করে।

২নং চরেশেরপুর ইউিনয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম রেজার সভাপত্বিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য ও শেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ ছানুয়ার হোসেন ছানু।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল খালেক, সাবেক উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান বায়োযিদ হাসান প্রমুখ। খেলাটি পরিচালনা করেন ডা. বজলুল রহমান।


প্রধান অতিথি বক্তব্যে আলহাজ্ব মোঃ ছানুয়ার হোসেন ছানু এমপি বলেন, আমাদের নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে ২নং চরশেরপুর ইউনিয়নের ভিতরে কাউকে এ টুনামেন্টে দল দেয়া হবেনা। আমাদের চরশেরপুর লোকজন খেলায় যারা খেলতে আসবে বা দেখেতে আসবে আমরা সকলে তাদেরকে সহযোগিতা করব। আমাকে আমার ইউনিয়নের ২০ টা ক্লাব দিবেন আমি সরকারিভাবে নিবন্ধন করে দিব। যেখানে সরকারিভাবে খেলাধুলার সরন্জাম নিয়ে দিতে পারব।

তিনি আরো বলেন, আমাকে আপনারা জনপ্রতিনিধি যেহেতু বানিয়েছেন আমার এইখানে সবাই যাবেন আমি তাদের আমার সবোর্চ্চ দিয়ে সহেযাগিতা করব। তাউ কেউ দয়া কইরা মারামারি কাটাকাটি করবেন না। আমার ইউনিয়নের যারা টাকার জন্য লেখাপড়া করতে পারেন না তারা আমার কাছে যাবেন। টূর্ণামেন্টের প্রথম পুরষ্কার হিসিবে একটি মোটর সাইকেল, দ্বিতীয় পুরষ্কার থাকছে একটি গরু।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি