মাত্র ৩ ঘণ্টায় নিঃস্ব হলেন কোটিপতি!

সর্বমোট পঠিত : 172 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

নিজের সমস্ত পুঁজি দিয়ে রাজধানীর নিউ সুপার মার্কেটে চারটি দোকান গড়ে তুলেছিলেন ওবায়দুল্লাহ রনি। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে তিল তিল করে জমানো টাকায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তুলেছেন প্রায় ১ কোটি টাকার মালামাল। কিন্তু শনিবার (১৫ এপ্রিল) ভোরে লাগা আগুনে মুনাফা লাভের আশায় ‘বিধিবাম’। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টার আগুনে পুড়ে ছাই হলো সব স্বপ্ন।


নিজের সমস্ত পুঁজি দিয়ে রাজধানীর নিউ সুপার মার্কেটে চারটি দোকান গড়ে তুলেছিলেন ওবায়দুল্লাহ রনি। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে তিল তিল করে জমানো টাকায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তুলেছেন প্রায় ১ কোটি টাকার মালামাল। কিন্তু শনিবার (১৫ এপ্রিল) ভোরে লাগা আগুনে মুনাফা লাভের আশায় ‘বিধিবাম’। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টার আগুনে পুড়ে ছাই হলো সব স্বপ্ন।

এ দিন অগ্নিকাণ্ডের পর ব্যবসায়ীদের অনেকেই কিছু মালামাল বের করতে পারলেও পারেননি তিনি। হয়তো কিছুই করার ছিল না তার। চোখের সামনে পুড়ছিল নিজের চার চারটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অসহায় হয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে সেটাই দেখছিলেন ‘স্বপ্নবোনা’ দুচোখে।

অনেকটা কষ্ট আর কিছু রক্ষা করতে না পারার আক্ষেপ নিয়ে গণমাধ্যমকে রনি বলেন, ২৬২, ২৬৩, ২৪৬/১- এই চারটি দোকান ছিল আমার। একদিনেই সব শেষ! কিচ্ছু নেই।

রনি বলেন, ঈদের আয়ে সারা বছর চলি। এখন পুরোপুরি নিঃস্ব হয়ে গেলাম।

রনির সঙ্গে আলাপকালে পাশে দাঁড়িয়েছিলেন আরেক ব্যবসায়ী মাহবুব শেখ। মার্কেটের দোতলা ও তিনতলা মিলে চারটি দোকান ছিল তার। ২৬০, ২৬১, ২২৬ ও ২৮৬। ঢাকা সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, শার্টের ব্যবসা। প্রায় ১ কোটি টাকার বেশি মূল্যের মালামাল ছিল। রাতে সব ঠিক দেখে গেলাম। সকালে আইসা দেখি দোকান পুড়তেছে।

একই মার্কেটে দুটি দোকানের মালিক টুটুল বাড়ৈ। নিজের দোকানে নিজেই ব্যবসা করেন। দোকান নম্বর এস ১০ ও এস ১৩। সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করে নিঃস্ব এই ব্যবসায়ী বলেন, সরকার আমাদের ক্ষতিপূরণ দেবে। ৩০ লাখ টাকার মালামাল ছিল।

এর আগে শনিবার (১৫ এপ্রিল) ভোর ৫ টা ৪০ মিনিটে লাগা আগুন সকাল ৯টা ১০ মিনিটের দিকে নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানান ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন। তিনি বলেন, এখন আগুন পুরোপুরি নির্বাপণ ও ডাম্পিংয়ের কাজ চলছে। ৯টা ১০ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা আগে ঘোষণা দেইনি।

আগুন নেভাতে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১২ কর্মীসহ ২২ জন আহত হয়েছেন বলে ফায়ার সার্ভিস ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে।

আগুনে অন্তত ১৫শ’ দোকানের ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করছেন ব্যবসায়ীরা।

সূত্র: নিউজ ২৪

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি