বগুড়ায় দুই আসনে উপনির্বাচনঃ ১১ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

সর্বমোট পঠিত : 31 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

বিএনপি দলীয় এমপিদের পদত্যাগের কারণে শূন্য হওয়া বগুড়ার দুই আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়ন যাচাইয়ে মোট ২২ জনের মধ্যে বাদ পড়েছেন ১১ জন সংসদ সদস্য প্রার্থী। বাতিলদের মধ্যে বগুড়া ৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনের ৫ জন এবং বগুড়া ৬ (সদর) আসনের ৬ জন প্রার্থী রয়েছেন।


বিএনপি দলীয় এমপিদের পদত্যাগের কারণে শূন্য হওয়া বগুড়ার দুই আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়ন যাচাইয়ে মোট ২২ জনের মধ্যে বাদ পড়েছেন ১১ জন সংসদ সদস্য প্রার্থী। বাতিলদের মধ্যে বগুড়া ৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনের ৫ জন এবং বগুড়া ৬ (সদর) আসনের ৬ জন প্রার্থী রয়েছেন। 

এর মধ্যে সদরে বাদ পড়েছেন আলোচিত প্রার্থী আব্দুল মান্নান আকন্দ এবং দুই আসনেই বাদ পড়েছেন হিরো আলম।

রোববার দুপুরে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের শেষ দিনে এই আদেশ দেন বগুড়া জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম।

জেলা প্রশাসন সূত্র বলছে, হলফনামায় দেয়া তথ্যে নানা রকম গড়মিল থাকায় প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রার্থীদের দেয়া ১ শতাংশ ভোটার তালিকা যাচাই করে একাধিক ব্যক্তির সমর্থন পাওয়া যায়নি।

৪ আসনের বাতিল হওয়া প্রার্থীরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তফা, ইলিয়াস আলী, কামরুল হাসান সিদ্দিকী জুয়েল, আব্দুর রশিদ ও আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম। এছাড়াও বগুড়া-৬ আসনে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ব্যক্তিরা হলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মান্নান আকন্দ, বিএনপির সাবেক নেতা সরকার বাদল, সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু, হিরো আলম, রাকিব হাসান এবং বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী মনসুর রহমান।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমের দুই আসনেই ১ শতাংশ ভোটার তালিকায় গড়মিল পাওয়া গেছে। সেখানে কয়েকজন ভোটারের সমর্থন না পাওয়ায় মনোনয়ন বাতিল করা হয়। একই রকম গড়মিল বাতিল হওয়া অন্য প্রার্থীদের তথ্যেও পাওয়া গেছে। ডিসি জানান, প্রত্যেকের দাখিলকৃত তথ্যে গড়মিল থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে কারও আপত্তি থাকলে রোববার বিকেল চারটার মধ্যে তারা আপিল করতে পারবে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১০ ডিসেম্বর বিকেলে রাজধানীর গোলাপবাগে ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ থেকে বিএনপির দলীয় সাতজন এমপির পদত্যাগ ঘোষণা আসে। পরদিন ১১ বিএনপির ছয়জন সংসদ সদস্য স্পিকারের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন। একজন দেশের বাইরে ছিলেন। তিনি পরে জমা দেন পদত্যাগপত্র। এই সাত সংসদ সদস্যের মধ্যে রুমিন ফারহানা ছিলেন সংরক্ষিত নারী আসনের। বাকি ছয়টি আসনে হচ্ছে উপনির্বাচন। ঘোষিত তফসীল অনুযায়ী- শূন্য হওয়া আসনগুলোয় নির্বাচন হবে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি। প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৫ জানুয়ারি। সবকটি আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ করা হবে মর্মে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি