বগুড়ায় প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ,যুবক কারাগারে

সর্বমোট পঠিত : 21 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

আদমদীঘিতে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে নয়ন চন্দ্র দাস নামে এক যুবককে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর তাকে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জেল হাজতে পাঠানো হয়।


আদমদীঘিতে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে নয়ন চন্দ্র দাস নামে এক যুবককে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর তাকে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

নয়ন চন্দ্র দাস উপজেলার তালশন পালপাড়ার অনিল চন্দ্র দাসের ছেলে। এর আগে বুধবার স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। ওই গ্রামের জনৈক আচ্চু শেখের পরিত্যক্ত চাতালের ম্যানেজার রুমের দক্ষিন পাশে গলির ভেতরে ঘটনাটি ঘটে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা পরিবার নিয়ে গত ১০ বছর ধরে তালশন গ্রামে পরিত্যক্ত ওই চাতালের ম্যানেজারের রুমে বসবাস করছিলেন। গত ৬ মাস আগে সেখান থেকে একই গ্রামে তার শ্বশুরের বাড়ীতে বসবাস শুরু করেন। তিনি বুধবার সকাল ৮টায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে অন্যের ধানের জমিতে স্প্রে করতে যান। এরপর দুপুর সাড়ে ১২ টায়  বাড়ীতে ফিরে মেয়েকে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন। এসময় পরিত্যক্ত ওই চাতালের গিয়ে দেখতে পান নয়ন কৌশলে চাতালের পরিত্যক্ত ঘরের বারান্দায় নিয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করছে। নয়নকে আটকের চেষ্টা করলে সে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা তাকে আটক করে।

পরে পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। ওই দিন রাতেই বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় পরের দিন গ্রেপ্তারকৃতকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম রেজা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং সেই সাথে গ্রেপ্তারকৃত নয়ন দাসকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি