শ্রীবরদীতে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের ফলে অন্তঃসত্ত্বা

সর্বমোট পঠিত : 109 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

শ্রীবরদী থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে সুরুজ্জামানকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। রাতেই অভিযান চালিয়ে আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ২২ সেপ্টেম্বর আসামী সুরুজ্জামানকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালত আসামী সুরুজ্জামানকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন।

শেরপুরের শ্রীবরদীতে ৫ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী (১৩) কে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মেয়েটি অন্ত”সত্ত্বা হয়ে পড়েছেন। উপজেলার সিংগাবরুনা ইউনিয়নের বড়ইকুচি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

২১ সেপ্টেম্বর রাতে ওই মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে একই গ্রামের মৃত লাল চাঁন মিয়ার ছেলে সুরুজ্জামান (৪৪) কে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শ্রীবরদী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাতেই সুরুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, স্কুল ছাত্রীর বাবা ঢাকায় দিন মজুরির কাজ করেন। ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রী বড়ইকুচি গ্রামে স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। গেল ২৮ জুন রাতে সুরুজ্জামান ওই স্কুলছাত্রীকে ১০ লক্ষ টাকা দিয়ে বিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ির পার্শে বাশঝাড়ে নিয়ে ধর্ষণ করে।

এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে গোয়াল ঘর সহ একাধিক জায়গায় নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে স্কুল ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে বাড়ির লোকজন ডাক্তারের কাছে নিলে যায়। ডাক্তার পরিক্ষা-নিরীক্ষা করে স্কুল ছাত্রীটি অন্ত:সত্ত্বার কথা জানান। পরে সুরুজ্জামান কতৃক ধর্ষণের বিষয়টি খুলে বলেন ওই স্কুল ছাত্রী।

শ্রীবরদী থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে সুরুজ্জামানকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। রাতেই অভিযান চালিয়ে আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ২২ সেপ্টেম্বর আসামী সুরুজ্জামানকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালত আসামী সুরুজ্জামানকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি