এশিয়া কাপে কত টাকা পেল শ্রীলঙ্কা?

সর্বমোট পঠিত : 35 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

দলে বড় তারকার ছড়াছড়ি নেই। টি-টোয়েন্টিতে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সও যাচ্ছেতাই। এশিয়া কাপ শুরুর আগেও এই শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে বাজি ধরতে সাহস করতেন না কেউ। শ্রীলঙ্কার শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা ছিল বলতে গেলে শূন্যের কোটায়।


দলে বড় তারকার ছড়াছড়ি নেই। টি-টোয়েন্টিতে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সও যাচ্ছেতাই। এশিয়া কাপ শুরুর আগেও এই শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে বাজি ধরতে সাহস করতেন না কেউ। শ্রীলঙ্কার শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা ছিল বলতে গেলে শূন্যের কোটায়।

প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ধরাশায়ী হওয়ার পর লঙ্কানদের সম্ভাবনা আরও উবে যায়। কিন্তু পুরো বিশ্ব না ভাবলেও দাসুন শানাকার দল বোধ হয় ভেবেছিল। আত্মবিশ্বাস ছিল, তাদের পক্ষে সম্ভব।

নাহলে এভাবে ঘুরে দাঁড়ানো যায়! ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান-যে দলই সামনে পড়েছে-স্রেফ উড়ে গেছে লঙ্কানদের সাহসিকতার সামনে। পাকিস্তানকে তো সুপার ফোর পর্বের শেষ ম্যাচেও হারিয়েছিল। এবার ফাইনালে আরও একবার পাকিস্তানবধের গল্প লিখলো লঙ্কানরা। সবাইকে অবাক করে দিয়ে ‘আন্ডাররেটেড’ দল হয়েও জিতে নিলো এশিয়া কাপের শিরোপা।

অর্থ বিশেষ করে ডলার সঙ্কটে ভোগা শ্রীলঙ্কার হাতে এবার উঠেছে এশিয়া কাপের শিরোপা। তাতে শ্রীলঙ্কার নাম ক্রীড়াঙ্গণে যেমন উজ্জ্বল হয়েছে, তেমন আর্থিকভাবে কিছুটা লাভবান হয়েছে লঙ্কানরা।

টি-টোয়েন্টি সংস্করণে হওয়া এবারের এশিয়া কাপে দুই ফাইনালিস্টের মোট প্রাইজমানি ছিল তিন লাখ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা)।

এর মধ্যে চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা পেয়েছে পাবে ২ লাখ মার্কিন ডলার (প্রায় ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা)। আর রানার্সআপ দল হিসেবে পাকিস্তান পেয়েছে ১ লাখ মার্কিন ডলার। শিরোপাজয়ী দল প্রাইজমানির পাশাপাশি পেয়েছে বিভিন্ন ধরনের বোনাসও।

ক্রিকেট বিশ্বে এশিয়া কাপই একমাত্র মহাদেশীয় টুর্নামেন্ট। আর কোথাও হয় না বলে মহাদেশীয় পর্যায়ের তুলনা টানা যায় না। তবে বিশ্বকাপের সঙ্গে মেলাতে গেলে এশিয়া কাপের প্রাইজমানি কয়েক গুণ কম। ২০২১ টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতে চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া পেয়েছিল ১৬ লাখ মার্কিন ডলার। রানার্সআপ নিউজিল্যান্ড পেয়েছিল ৮ লাখ মার্কিন ডলার।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি