কেমন আছেন সেই রিতা-মিতা

কেমন আছেন সেই রিতা-মিতা
সর্বমোট পঠিত : 47 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

শারীরিকভাবে কিছুটা সুস্থ থাকলেও মানসিকভাবে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বহুল আলোচিত দুই বোন রিতা-মিতা। তাদের মধ্যে নুরুন নাহার মিতা ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার; আইনুন নাহার রিতা ছিলেন চিকিৎসক। তারা দুজনই সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত।

২০০৫ সালের ৭ জুলাই রাজধানীর মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনের সি ব্লকের ৯ নম্বর সড়কের ১ নম্বর বাড়ি থেকে এই দুই বোনকে উদ্ধার করে একটি মানবাধিকার সংগঠন। সে সময় বাড়িটি ‘ভূতের বাড়ি’ নামেই পরিচিত ছিল। বাসার দরজা-জানালা বন্ধ করে থাকতেন তারা। কারও সঙ্গে মিশতেন না, কথাও বলতেন না। একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে থাকা তাদের মা বিনা চিকিৎসায় মারা যান। দুই বোন মায়ের লাশ ঘরেই রেখে দেন। কাউকে না জানিয়ে মধ্যরাতে হারিকেন নিয়ে তারা ঘরের বাইরে মায়ের লাশ কবর দিতে চেয়েছিলেন। তখন প্রতিবেশীরা দেখে ফেললে জানাজানি হয়ে যায়। পরে তাদের উদ্ধার করে চিকিৎসা দিলে তারা কিছুটা সুস্থ হন।


তারা সুস্থ হওয়ার পর বেশ কিছুদিন তাদের নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। ২০১৩ সালে কাউকে না বলে তারা বগুড়ায় চলে গেলে ফের আলোচনা শুরু হয়। সেখান থেকে তাদের উদ্ধার করে রাখা হয় বড় বোন কামরুননাহার হেনার বাসায়।


রিতা-মিতার সর্বশেষ অবস্থা জানতে সম্প্রতি নিউজবাংলার পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় তাদের বড় বোন কামরুন নাহার হেনার সঙ্গে। কথা হয় হেনা ও তার একমাত্র মেয়ে সামিনা তুন নুরের সঙ্গে।


বড় বোন হেনা জানান, রিতা-মিতা বর্তমানে তার ধানমন্ডির বাসায় আছেন। শারীরিক ও মানসিকভাবে তারা মোটামুটি ভালোই ছিলেন। কিন্তু করোনার শুরুর দিকেই রিতা-মিতা সব ধরনের ওষুধ খাওয়া বন্ধ করে দেন, যে কারণে আস্তে আস্তে তারা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন; আবার আগের মতো আচরণ করছেন।


তিনি বলেন, ‘এখন তারা অপরিচিত কারও সঙ্গে দেখা করে না। করোনার কারণে আমরাও কারও বাসায় নিয়ে যাই না।’


ইদানীং ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রিতা-মিতাকে নিয়ে নানা ধরনের গুজব চলছে বলে অভিযোগ করেন তাদের বড় বোন হেনা। বলেন, ‘এসব শুধুই গুজব। রিতা-মিতা আমার বাসাতেই আছে এবং তাদের মিরপুরের জায়গা কেউ দখল করেনি।’


তিনি আরও বলেন, ‘আমার নিজের দুটি ফ্ল্যাট একসঙ্গে তৈরি করা। কিন্তু আমাদের প্রধান দরজা একটা। ভেতরে একটা ফ্ল্যাটে আমরা স্বামী-স্ত্রী মেয়েকে নিয়ে থাকি। আরেকটি ফ্ল্যাটে আমার ছোট দুই বোন রিতা-মিতা থাকে।’


রিতা-মিতার কারণে সামজিকভাবে নানা ধরনের হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে দাবি করেন তাদের বড় বোন। বলেন, ‘বাইরে কোথাও বেড়াতে গেলে আমার চেহারা রিতার মতো হওয়ায় মানুষ আমাকে নানা ধরনের প্রশ্ন করে। এতে আমার স্বাভাবিক চলাচলে বিঘ্ন ঘটে।’


‘জমি দখলের প্রশ্নই ওঠে না’


রিতা-মিতার বড় বোন হেনা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মিরপুরের জমির মালিক এখন আমরা তিন বোন। আমার মা-বাবা বেঁচে নেই। আমার কোনো ভাইও নেই। যেহেতু মিরপুরের জমির মালিক আমিও, তাই সেই জমি আমি দখল করব কেন?


‘তাছাড়া রিতা-মিতা বিয়েও করেনি। তাদের কোনো সন্তানও নেই। তাই ওই জমি তো একসময় আমার মেয়ে সামিনার নামে হয়ে যাবে। তাই প্রশ্নই ওঠে না ওই জামি দখল করার। তাছাড়া আমার স্বামীর ধানমন্ডিতে নিজস্ব ফ্ল্যাট আছে। যেখানে আমি আমার বোন রিতা-মিতাসহ একসঙ্গে আছি। আমার আসলে কোনো আর্থিক সংকট নেই।’


রিতা-মিতার বড় বোন কামরুন নাহার হেনা কিছুটা অসুস্থ থাকায় তিনি বেশি কথা বলতে চাননি। বলেন মেয়ে সামিনা তুন নুরের সঙ্গে কথা বলতে। পরদিন সামিনা তার পরিবার ও তার দুই খালার বিষয়ে কথা বলেন।


নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ডাক্তার বলছে, ওষুধ খেলে খালারা ভালো থাকবে। কিন্তু তারা কিছুদিন ওষুধ খায়; তারপর আবার ছেড়ে দেয়। ওষুধ খেলে ছয়-সাত মাস তারা ভালো থাকে। খাওয়া ছেড়ে দিলে আবার আগের মতো মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে; উল্টাপাল্টা কথা বলে।’


উল্টাপাল্টা কী বলে এমন প্রশ্নে সামিনা বলেন, এই যেমন বলে, ‘আমি তো পুরা বাংলাদেশের মালিক। আমিই এই দেশ চালাব। এই পুরা বিশ্বব্রহ্মাণ্ড আমার। আমাদের কাছে আল্লাহর বাণী আসছে।’ তারা বসে বসে শুধু বিভিন্ন কোড বানায় আর বিড়বিড় করতে থাকে। এসব আমরা বুঝি না। তবে তারা দিনে সময় করে কোরআন তেলাওয়াত করে এবং বাংলায় অর্থসহ পড়ে।’


তিনি বলেন, ‘তারা এতটাই উল্টাপাল্টা বলে যে মাঝে মাঝে আমাকেই বলে তুমি তো আগে ছেলে ছিলা, এখন মেয়ে হলা কীভাবে? আমার বাবা-মাকে বলে তোদের ছেলে কই? এই মেয়ে কে? অথচ আমার কোনো ভাই নেই, আমিই একমাত্র মেয়ে।’


রিতা-মিতার একমাত্র ভাগনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন তারা নিয়মিত ওষুধ খেত। সমস্যা হয়নি। কিন্তু করোনার শুরুর দিকে তারা সব ধরনের ওষুধ খাওয়া ছেড়ে দেয়। এখন আমরা ইচ্ছা করলেই তাদের জোর করে ওষুধ খাওয়াতে পারি না।


‘তারা গোপনে সব ওষুধ নিয়ে জানালা দিয়ে বাইরে ফেলে দেয়। প্রতিবেশীরা দেখে আমার মাকে সে কথা জানান। আর এই ওষুধ খাওয়া ছেড়ে দেয়ার পর থেকেই খালারা শারীরিকভাবে সুস্থ থাকলেও মানসিকভাবে সেই আগের মতো অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তাদের আচার-আচরণ আগের জায়গায় চলে গেছে।’


সামিনা জানান, আগে মাঝে মাঝে তার খালারা রাস্তায় হাঁটতে বের হতেন। কিন্তু সমস্যা হলো তাদের তো অনেকেই চেনে। তাদের দেখলেই অনেকে দাঁড়িয়ে যায়। তারপর নানা ধরনের প্রশ্ন করতে থাকে।


‘আপনাদের এই রোগ কীভাবে হলো, আপনারা উল্টাপাল্টা কাজ করেন কেন- এ ধরনের বিব্রতকর কথা বলে মানুষ। এতে খালারা মানসিকভাবে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ত। একপর্যায়ে বাইরে বের হওয়া বন্ধ করে দেয়’, বলেন তিনি।


সামিনা আরও বলেন, ‘তারপরও খালারা আমাদের সঙ্গে আড্ডা দিত, টিভি দেখত, গান গাইত। কিন্তু করোনার প্রথম দিকে তারা পুরোপুরি ওষুধ খাওয়া বন্ধ করে দেয় এবং আস্তে আস্তে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে।


‘এখন তারা কারও সঙ্গে দেখা করে না, ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করে না। উদ্ভট-উদ্ভট কথা বলে। মাঝে মাঝেই আমাদের গালিগালাজ করে। সব সময় ঘরের লাইট বন্ধ রাখে।’


রিতা-মিতাকে সর্বশেষ ২০১৭ সালে হাসপাতালে নেয়া হয় জানিয়ে তাদের ভাগনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এরপর ধীরে ধীরে তারা সুস্থ হয়ে ওঠে। কয়েক বছর মোটামুটি ভালোই ছিল। কিন্তু এখন তারা আগের মতোই হয়ে গেছে।


‘কিন্তু করোনার কারণে হাসপাতালে নিতে পারছি না। কারণ এমনিতেই খালারা বয়স্ক মানুষ। এক রোগ থেকে মুক্তির জন্য নিলে যদি আরেক রোগে আক্রান্ত হয়- সে ভয়ে হাসপাতালে নিচ্ছি না। করোনা পরিস্থিতি একটু ভালো হলেই তাদের হাসপাতালে নিয়ে যাব।’


কেন তারা ওষুধ খাওয়া বন্ধ করে দেন- জানতে চাইলে সামিনা বলেন, ‘গত বছর হঠাৎ করে তারা বলে আমরা ওষুধ খাব না। আল্লাহর ওহি আমাদের কাছে আসছে। আমাদের ওষুধ খেতে নিষেধ করা হয়েছে। শুধু ওষুধই নয়, তারা মাঝে মাঝে সব ধরনের খাওয়া-দাওয়াই বন্ধ করে দেয়। আল্লাহর ওহিতে নাকি তাদের সব খাওয়া-দাওয়া বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়। তার পর আমরা সবাই মিলে জোর করে ধরে খাওয়াই।’


বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সামিনা বলেন, ‘একটা মানুষ অসুস্থ হলে তাদের আত্মীয়স্বজন সেবা-যত্ন করে। কিন্তু আমার নানিবাড়ির কেউ নেই। তাদের জন্য কিছু করার মতো আমার মা, বাবা আর আমি ছাড়া আর কেউ নেই। আর আমার বাবার বাড়ির আত্মীয়স্বজন আছে। কিন্তু তারা কেন খালাদের জন্য কিছু করবে? তারা হয়তো আমার মা, বাবা আর আমার জন্য করতে পারে।’


রিতা-মিতার ভাগনি বলেন, ‘রাতের বেলা যখন আমি পানি খেতে উঠি, তখন মাঝে মাঝে দেখি খালাদের রুম থেকে আওয়াজ আসছে। তারা তখন রুমের লাইট বন্ধ করে দিয়ে গান গায়। পুরোনো দিনের বাংলা সিনেমার গান গায়। দুজনে মিলে হাসিঠাট্টা করে। তারা আমাদের সামনে তেমন কথা না বললেও নিজেরা নিজেরা অনেক গল্প করে, গান গায়।’


আইসক্রিম আর রেস্টুরেন্টের খাবার খুব পছন্দ রিতা-মিতার


রিতা-মিতার খাদ্য তালিকায় কী কী আছে জানতে চাইলে তাদের ভাগনি বলেন, ‘আমরা যা খাই তারাও তাই খায়। সকালবেলা রুটি, আলুভাজি, ডিমভাজি অথবা তরকারি- আমরা যেটা খাই। আর দুপুরে ভাত, মাছ, মুরগির মাংস। আব্বু-আম্মুর ডায়াবেটিস। রাতে তারা রুটি খান; আমি আর খালারা ভাত খাই। মোট কথা, আমরা যা খাই তারাও তাই খায়।


‘তারা যখন খেতে চায় না তখন অন্য বিষয় থাকে; অসুস্থতার কারণে খেতে চায় না। এ ছাড়া তারা খাওয়া নিয়ে কোনো রকম জ্বালায় না। তারা খুব লক্ষ্মী। তবে খালারা আইসক্রিম খেতে খুব পছন্দ করে। তাই তাদের জন্য বাসায় প্রায় সব সময় আইসক্রিম কিনে রাখা হয়। দিনে অথবা রাতে তাদের যখন ইচ্ছে হয় তারা ফ্রিজ থেকে নিয়ে আইসক্রিম বের করে খায়।’


সামিনা জানান, সকাল ৭-৮টার মধ্যে তার খালারা নাশতা করেন। দুপুরে একটা-দেড়টার দিকে খাবার খান। আর রাতে ৮টার মাধ্যে রাতের খাবার শেষ করেন। গভীর রাতে দুধ, পাউরুটি আর আইসক্রিম খান তারা।


‘খালারা রেস্টুরেন্টের খাবার খুব পছন্দ করে। তাই আমি মাঝে মাঝেই খালাদের জন্য রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার আনি। তারা খুব পছন্দ করে খায়’, বলেন তিনি।


সামিনা আরও জানান, আসলে তার খালারা প্রচুর রাত জাগেন। তারা রাত জেগে একেবারে সকাল ৭-৮টার দিকে নাশতা করে ঘুমান। তবে একেক দিন একেক রকম। কোনো দিন রাতে ঘুমান আবার কোনো দিন দিনে ঘুমান। তারা প্রচুর লেখাপড়ে করেন।


সামিনা বলেন, ‘তারা ডিকশনারি পড়ে। একেকটা করে ওয়ার্ড মুখস্ত করে। আর তাদের মাথায় যা আসে সেটা ফিজিক্সের কোডের মতো করে লেখে। উল্টাপাল্টা যা মনে আসে তাই লেখে। একজন সাধারণ মানুষ সেই লেখা দেখলে কিছুই বুঝতে পারবে না।


‘আমরাও তাদের লেখা বুঝতে পারি না। খালারা আগে নিয়মিত টিভি দেখত। এখন আর টিভি দেখে না। এখন তারা কাউকেই পছন্দ করে না। যেই কাছে যায় তাকে গালাগালি করা শুরু করে।’


আক্ষেপ করে সামিনা বলেন, ‘খালাদের আত্মীয়স্বজন বলতে এখন একমাত্র আমরাই আছি। এ ছাড়া আর আপন বলে কেউ নেই। আমরা ছেড়ে দিলে তারা মারাই যেত। আমার খুব হিসাব করে চলতে হয়। আমার মা-বাবার বয়স হয়ে গেছে। তারা মাঝে মাঝে অসুস্থ থাকে। খালারাও অসুস্থ। বাসায় আমি একা সুস্থ মানুষ। আর কেউ নেই।


‘যখন তারা সবাই অসুস্থ থাকে তখন আমাকেই পুরা পরিবার সামলাতে হয়। আমার বন্ধুরা যখন-তখন বেড়াতে যেতে পারে, কিন্তু আমি পারি না। কারণ খালাদের কে কখন ওষুধ খাবে বা খাবার খাবে সেটাও আমাকে ভাবতে হয়।’


রিতা-মিতার ভাগনি জানান, তার লেখাপড়া শেষ দিকে। কিন্তু পুরো পরিবারের যে অবস্থা তাতে কাকে তিনি বিয়ে করবেন তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন।


সামিনা বলেন, ‘আমার লেখাপড়া শেষের দিকে। এখন আমি কাকে বিয়ে করব- সেটা নিয়েও আমাকে ভাবতে হয়। কারণ আমার স্বামী যিনি হবেন তাকে অবশ্যই আমাদের বাসায় থাকতে হবে। এবং আমার মা-বাবা, আর দুই খালাকে দেখতে হবে। আমি ছাড়া তো এদের আর কেউ নেই।


‘নিজের জীবনের এতটা সংগ্রাম করেও যখন মানুষের মুখে শুনতে হয় আমরা মিরপুরের জমি দখল করেছি অথবা আমরা খালাদের লন্ডনে পাঠিয়ে দিয়েছি তখন কেমন লাগে বলেন তো?’


তিনি বলেন, ‘আমার বাবার বয়স ৭৫। প্রায় সময়ই অসুস্থ থাকে। তারপরও বাবা খালাদের অনেক খেয়াল রাখে। খালারাও বড় দুলাভাই হিসেবে বাবার কাছে অনেক আবদার করে- এটা খাব ওটা খাব। বাবাও সেটা পূরণ করে।’


এ সময় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে রিতা-মিতার ভাগনি বলেন, ‘আর কিছু মানুষ ফেসবুকে প্রচার চালাচ্ছেন আমার বাবা জমি দখলের জন্য খালাদের লন্ডনে পাঠিয়ে দিয়েছেন। সবচেয়ে বড় কথা, আমাদের পরিবারের মধ্যে একজনকেও পাওয়া যাবে না যে লন্ডনে থাকে। তাহলে খালাদের লন্ডনে কার কাছে পাঠাব? খালাদের তো পাসপোর্টও নেই।


‘আমি বাবা-মাকে বলেছি মিরপুরের ওই জায়গায় ঘর করে ভাড়া দিয়ে দাও। কারণ আল্লাহ না করুক বাবা-মা না থাকলে আমিসহ খালাদের নিয়ে চলব কী করে? তাদের যেন চিকিৎসা করাতে পারি।’

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি