আম্পানে ভেঙে পড়া গাছ গেল কোথায়: মমতা

সর্বমোট পঠিত : 15 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

আম্পান ও ইয়াসের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রতিবছর পশ্চিমবঙ্গের বিস্তীর্ণ বাঁধ ভেঙে যায়। বাঁধ ভাঙা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বুধবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘প্রতিবছর যদি হাজার হাজার লাখ লাখ কোটি টাকা জলে যায়, তাহলে আমি জলকে বাঁধব কী করে? জল তো আমায় বেঁধে ফেলছে?’

ইয়াস ও আম্পান দুর্যোগে ভেঙে গেছে একের পর এক বাঁধ। ভেসে গেছে বিস্তীর্ণ জনবসতি। বাঁধ ভাঙা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি, ইরিগেশনের নামে বাঁধ ভাঙা সারাচ্ছি আর প্রতিবছরই তা ভেঙে যাচ্ছে। এই অবস্থায় প্রাকৃতিক দুর্যোগ রুখতে গেলে প্রকৃতিকে কাজে লাগাতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রকৃতিই সহায়ক।' মুখ্যমন্ত্রী সেচ দপ্তরের কাছে প্রশ্ন রাখেন, ‘আম্পানের পর তোমরা কাজ করলে কতবার কত টাকা দিয়েছিলাম…আম্পানের পর তাহলে তোমরা যে কাজ করলে… ইয়াসের পর কতগুলো বাঁধ ভাঙল? তাহলে টাকাটা কি জলে চলে যাচ্ছে? আম্পানে পড়ে যাওয়া গাছগুলো বাঁধের কাজে লাগানো যেত। সেই গাছগুলো কোথায়?'

প্রশ্ন তুলে মুখ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে বলেন, ‘কয়েক মাস আগে আম্পান হয়েছে। গাদা গাদা গাছ পড়েছে। সেই সময় কলকাতায় তো এখানে-ওখানে কয়েক হাজার গাছ পড়েছে। সেই গাছগুলো কোথায়, কী অবস্থায় আছে, তিন দিনের মধ্যে আমি রিপোর্ট চাই।’

ইয়াসের ধাক্কায় তছনছ হয়ে যাওয়া দীঘা সৈকতের সৌন্দর্যায়ন ফাউন্ডেশনে গলদ রয়েছে বলেও অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিকে ইয়াসে বিধ্বস্ত সুন্দরবনের দুর্গত এলাকা বুধবার পরিদর্শনে গিয়ে তৃণমূল সাংসদ ও তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক ব্যানার্জি বলেন, ‘বাঁধ ভাঙছে কেন তা নিয়ে তদন্ত হবে। আগে যারা সেচমন্ত্রী ছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত হবে। মুখ্যমন্ত্রী তো বলেছেন, তদন্ত হবেই।’ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন সাবেক দুই সেচমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি এবং শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমূলে থেকে কাজ করতে পারছিলেন না বলে দল ছেড়েছিলেন।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি