আলিম পরীক্ষা দুই ঘণ্টা, নম্বর বিভাজন যেভাবে

সর্বমোট পঠিত : 25 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

আলিমের ব্যবহারিকসহ বিষয়গুলোতে পরীক্ষার্থীদের প্রতি পত্রে ৪৫ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এরমধ্যে রচনামূলকে ৩০ নম্বর ও নৈর্ব্যক্তিকে থাকবে ১৫ নম্বর। আর ব্যবহারিক ছাড়া বিষয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রতি পত্রে ৫৫ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এরমধ্যে ৪০ নম্বর রচনামূলক পরীক্ষা ও ১৫ নম্বরের নৈর্ব্যাত্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে বাংলা দ্বিতীয় পত্র এবং ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরের। আর উচ্চতর গণিত দুই পত্রের পরীক্ষাই হবে ৪৫ নম্বরের। আরবি ও ধর্মীয় বিষয়গুলোতে ৫০ থেকে ৬০ নম্বরের শুধু রচনামূলক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে পরীক্ষার্থীদের।

চলতি বছরে আলিমের প্রতিটি বিষয়ের প্রতি পত্রে দুই ঘণ্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ২০ মিনিট নৈর্ব্যক্তিক এবং ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট রচনামূলক প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য বরাদ্দ থাকবে।

আলিমের ব্যবহারিকসহ বিষয়গুলোতে পরীক্ষার্থীদের প্রতি পত্রে ৪৫ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এরমধ্যে রচনামূলকে ৩০ নম্বর ও নৈর্ব্যক্তিকে থাকবে ১৫ নম্বর। আর ব্যবহারিক ছাড়া বিষয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রতি পত্রে ৫৫ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এরমধ্যে ৪০ নম্বর রচনামূলক পরীক্ষা ও ১৫ নম্বরের নৈর্ব্যাত্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে বাংলা দ্বিতীয় পত্র এবং ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরের। আর উচ্চতর গণিত দুই পত্রের পরীক্ষাই হবে ৪৫ নম্বরের। আরবি ও ধর্মীয় বিষয়গুলোতে ৫০ থেকে ৬০ নম্বরের শুধু রচনামূলক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে পরীক্ষার্থীদের।

ব্যবহারিক ছাড়া বিষয়েগুলোর রচনামূলকের ৪০ নম্বরকে ৭০ নম্বরে এবং নৈর্ব্যক্তিকের ১৫ নম্বরকে ৩০ নম্বরে রূপান্তর করে ফল প্রস্তুত করা হবে। আর ব্যবহারিকসহ বিষয়গুলোর রচনামূলকের ৩০ নম্বরকে ৫০ নম্বরে এবং নৈর্ব্যক্তিকের ১৫ নম্বরকে ২৫ নম্বরে রূপান্তর করে ফল প্রস্তুত হবে। বাংলা দ্বিতীয় পত্র এবং ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের ৫০ নম্বরকে ১০০ নম্বরে রূপান্তর করা হবে। উচ্চতর গণিতের দুই পত্রের ৪৫ নম্বরকে ৭৫ এ রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে। আর আরবি ও ধর্মীয় বিষয়গুলোর নম্বরও ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

এসব তথ্য জানিয়ে মঙ্গলবার আলিম পরীক্ষার নম্বর বিভাজন প্রকাশ করেছে মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড।

নম্বর বিভাজনে উল্লেখ করা হয়েছে, প্রতি পত্রের পরীক্ষার সময় হবে দুই ঘণ্টা। এর মধ্যে ২০ মিনিট নৈর্ব্যক্তিক এবং ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট রচনামূলক প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য বরাদ্দ থাকবে। সনাতন পদ্ধতির বিষয়ের জন্য ধারাবাহিকভাবে দুই ঘণ্টা সময় বরাদ্দ থাকবে। আর পরীক্ষা হবে ২০২২ খ্রিষ্টাব্দের জন্য পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসূচি অনুসারে।

আলিম পরীক্ষার নম্বর বিভাজন পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, পদার্থবিজ্ঞান প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র, রসায়ন প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের মত বিজ্ঞান বিভাগের ব্যবহারিকসহ প্রতি পত্রের পরীক্ষা হবে মোট ৪৫ নম্বরে। এরমধ্যে রচনামূলকে ৩০ ও নৈর্ব্যক্তিকে থাকবে ১৫ নম্বর। রচনামূলক অংশে প্রতিটি পত্রে মোট ৮টি প্রশ্ন থাকবে। এরমধ্যে ৩টি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। প্রতিটিতে ১০ নম্বর। আর নৈর্ব্যক্তিকে ২৫টি প্রশ্ন থাকবে, এরমধ্যে উত্তর করতে হবে ১৫টির। প্রতিটির মান ১ নম্বর।

বোর্ড বলছে, ব্যবহারিকসহ বিষয়ে প্রতি পত্রের পরীক্ষার ৩০ নম্বরকে ৫০ নম্বরে ও নৈর্ব্যক্তিকের ১৫ নম্বরকে ২৫ নম্বরে রূপান্তর করে শিক্ষার্থীদের ওই পত্রে পাওয়া মোট নম্বর নির্ধারণ করা হবে।

আর আলিমের ব্যবহারিক ছাড়া বিষয়গুলোতে প্রতি পত্রে মোট পরীক্ষা হবে ৫৫ নম্বরে। এর মধ্যে রচনামূলকে থাকবে ৪০ নম্বর আর নৈর্ব্যক্তিকে থাকছে ১৫ নম্বর। রচনামূলক অংশে ১১টি প্রশ্ন থাকলেও উত্তর করতে হবে ৪টি প্রশ্নের। প্রতিটিতে ১০ নম্বর। আর নৈর্ব্যক্তিকে ৩০টি প্রশ্নের মধ্যে উত্তর করতে হবে ১৫টির। প্রতিটির মান ১ নম্বর। ব্যবহারিক ছাড়া বিষয়েগুলোর পরীক্ষার ৪০ নম্বরকে ৭০ নম্বরে ও নৈর্ব্যক্তিকের ১৫ নম্বরকে ৩০ নম্বরে রূপান্তর করে শিক্ষার্থীদের মোট নম্বর নির্ধারণ করা হবে।

এদিকে উচ্চতর গণিত প্রথম পত্রে ৯টি প্রশ্ন থাকবে মোট নম্বর হবে ৪৫ এবং দ্বিতীয় পত্রে ৮টি প্রশ্ন থাকবে মোট নম্বর হবে ৪৫, যা ৭৫ এ রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে। এ বিষয়ের বাকি নম্বর ব্যবহারিকের।

আলিমের কুরআন মাজিদ বিষয়ে মোট ১০টি প্রশ্ন থাকবে। এর মধ্যে অনুবাদমূলক ৮টি প্রশ্ন থেকে তিনটি ও শানে নযুল লিখনের ২টি প্রশ্নের মধ্যে যেকোনো একটি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এ বিষয়ে মোট নম্বর হবে ৫৫, যা ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

হাদিন ও উসুলূল হাদিস বিষয়ে মোট প্রশ্ন থাকবে ১১টি। এরমধ্যে অনুবাদমূলক ৭টি প্রশ্নের মধ্য ৩টির উত্তর করতেহবে। আর উসূলুল হাদিস অংশের ৪টি প্রশ্নের মধ্যে উত্তর করতে হবে ১টির। এ বিষয়ের মোট নম্বর হবে ৫৮, যা ১০০ নম্বরে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

আল ফিকহ প্রথম পত্রে ৭টি প্রশ্ন থাকবে। উত্তর দিতে হবে ৩টির। মোট নম্বর হবে ৬০, যা ১০০ তে রূপান্তর করা হবে। আল ফিকহ দ্বিতীয় পত্রে মোট ১৩টি প্রশ্ন থাকবে। উসূলুল ফিকহ থেকে আসা ৭টি প্রশ্নের ২টি, ফারায়েজ এর আলিফ অংশ থেকে আসা ৪টি প্রশ্নের মধ্যে ১টি ও ফারায়েজ এর বা অংশ থেকে আসা ২টি প্রশ্নের মধ্যে ১টির উত্তর দিতে হবে। মোট নম্বর হবে ৫৫, যা ১০০ তে রূপান্তর করা হবে।

আরবি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরের, যা ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে। আরবি সাহিত্য পরীক্ষাও হবে ৫০ নম্বরের যা পরে ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

বালাগাত ও মানতিক বিষয়ের মোট ১৪টি প্রশ্ন থাকবে। এর মধ্যে ইলমুল বালাগাত থেকে আসা ৭টি প্রশ্নের মধ্যে ৩টির এবং মানতিক থেকে আসা বাকি ৭টি প্রশ্ন থেকে দুই প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। এ বিষয়ের মোট নম্বর হবে ৫০ যা পরে ১০০ তে রূপান্তর করা হবে।

তাজভিদ প্রথম পত্রে মোট ১৫টি প্রশ্ন থাকবে। এর মধ্যে যেকোনো ৫টির উত্তর করতে হবে, মোট নম্বর হবে ৫০। যা ১০০ তে রূপান্তরিত করে দেয়া হবে ফল। তাজভিদ দ্বিতীয় পত্রে মোট ১৭টি প্রশ্ন থাকবে এর মধ্যে হাদিয়্যাতুল ওয়াহিদ থেকে আসা ১২টি প্রশ্নের মধ্যে চারটি ও ফাওয়াজেদে মাক্কিয়্যার ৫টি প্রশ্নের মধ্যে যেকোনো একটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। এ বিষয়ের মোট নম্বর হবে ৫০ যা পরে ১০০ তে রূপান্তর করা হবে।

উর্দু প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরের। উর্দু প্রথম পত্রে গদাংশ থেকে ২৫ নম্বরের এবং পদ্যাংশ থেকে ২৫ নম্বরে উত্তর করতে হবে শিক্ষার্থীদের। উর্দু দ্বিতীয় পত্র কাওয়াইদ অংশ থেকে ৮টি প্রশ্নের মধ্যে ২টির, ইনশা অংশের ৫টি প্রশ্ন থেকে ১টি, তরজমা অংশের ২টি প্রশ্নের মধ্যে ১টি এবং খুতুত অংশের অধীনে থাকা ১টি প্রশ্নের মধ্যে ১টির উত্তর করতে হবে। উর্দু প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে পরীক্ষা হবে ৫০ নম্বরকে ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

ফার্সি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষাও হবে ৫০ নম্বরের। ফার্সি প্রথম পত্রে গদ্যাংশে ২৫ নম্বর ও পদ্যাংশ ২৫ নম্বর থাকবে। ফার্সি দ্বিতীয় পত্রে ব্যকরণ থেকে আসা ৮টি প্রশ্ন থেকে ২টির উত্তর দিতে হবে, নম্বর থাকবে ২০। প্রবন্ধ, পত্র লিখন ও অনুবাদ অংশের নম্বর থাকবে ৩০। ফার্সি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষাও হবে ৫০ নম্বরকেও ১০০ তে রূপান্তর করে ফল দেয়া হবে।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি