শেরপুরে নূরানী তা’লীমুল কোরআন বোর্ডের আলোচনা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল

ইসলাম কখনই সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদকে সমর্থন করে না ॥ ডিসি মোমিনুর রশীদ

শেরপুরে নূরানী তা’লীমুল কোরআন বোর্ডের আলোচনা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল
সর্বমোট পঠিত : 77 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের আরবী, বাংলা ও ইংরেজি লেখা প্রদর্শন, গজল, হামদ, নাত ও ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশনের পাশাপাশি প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকদের হাতের লেখাও প্রদর্শিত হয়। পরে অতিথিগণসহ সবাই দোয়া ও ইফতার মাহফিলে শরিক হন। এরপর অতিথিদের হাতে মাদ্রাসার তরফ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।

শেরপুরে পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে নূরানী তা’লীমুল কোরআন বোর্ডের উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০ এপ্রিল বুধবার বিকেলে শহরের দমদমা কালীগঞ্জ এলাকাস্থ চট্টগ্রাম নূরানী তালীমুল কোরআন বোর্ডের শেরপুর কার্যালয়ে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. মোমিনুর রশীদ।

ওইসময় তিনি বলেন, সরকার সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি ইসলামী শিক্ষার প্রতিও যথেষ্ট দায়িত্বশীল। এজন্য সরকার মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ায় এ শিক্ষার গুরুত্ব বেড়েছে। ফিরে এসেছে শৃঙ্খলা। এ শিক্ষাকে উৎসাহিত করতে ইতোমধ্যে সরকার দাওরায়ে হাদীসকে মাস্টার্সের সমমর্যাদা দিয়েছে। তিনি বলেন, ইসলাম কখনই সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদকে সমর্থন করে না। তাই মাদ্রাসা বা ইসলামী শিক্ষার মাধ্যমে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে জঙ্গীবাদবিরোধী মনোভাব গড়ে তুলতে হবে। গুজবকে সবসময় না বলতে হবে। সেইসাথে জঙ্গীবাদকে প্রত্যাখান করে ইসলামী অনুশাসন মেনে সুন্দর ও আলোকিত সমাজ গড়ে তুলতে হবে। তিনি আরও বলেন, এ মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রম দেখে আজ সত্যিই আমরা অভিভূত হয়েছি। কারণ মাদ্রাসা শিক্ষা সম্পর্কে এখনও আমাদের মাঝে নেতিবাচক ধারণা শেষ হয়নি। কাজেই সেই ধারণাকে পাল্টে দিয়ে সত্যিই প্রতিষ্ঠানটি ইসলামী শিক্ষা বিস্তারে বিশাল অবদান রাখছে। তিনি জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে এ প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখার স্বার্থে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম নূরানী তা’লীমুল কোরআন বোর্ডের মহাসচিব আল্লামা মুফতি জসিমুদ্দিন (দা: বা:) বলেন, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নূরানী শিক্ষা ব্যবস্থাকে যুগোপযোগী হিসেবে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চলছে। সরকারের কল্যাণে এ শিক্ষার মাধ্যমে এখন যেহেতু বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে, সেহেতু এ শিক্ষা নিয়ে মেধাবী ছেলেমেয়েরা একদিন প্রশাসন থেকে শুরু করে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরে প্রবেশ করতে সক্ষম হবে ইনশাআল্লাহ। তিনি আরও বলেন, ২০২১ শিক্ষাবর্ষে এ বোর্ডের তত্বাবধানে সারাদেশে কেন্দ্রীয় সনদ পরীক্ষায় (প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার সমমর্যাদা) প্রায় ৩৭ লক্ষের অধিক শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে শেরপুর জেলারই রয়েছে প্রায় ১৫ হাজার।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুকতাদিরুল আহমেদ, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রেজুয়ান এবং জেলা আইনজীবী সমিতি ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আধার।

বোর্ডের শেরপুর কার্যালয়ের পরিচালক, সিনিয়র প্রশিক্ষক-পরিদর্শক মাওলানা মো. হারুনুর রশীদ ও শেরপুর পুরাতন মার্কাজ মসজিদের খতিব মাওলানা মুফতি মো. মাসুম বিল্লাহর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নূরানী তা’লীমুল কোরআন বোর্ডের সাংগঠনিক সচিব আলহাজ্ব মাওলানা মো. জমির উদ্দিন, ইন্দিলপুর হামিউস সুন্না মাদ্রাসার পরিচালক মুফতি মো. শিহাব উদ্দিন, মাদ্রাসার দাতা সদস্য আলহাজ্ব মো. আব্দুল মজিদ দুলাল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার এসএম আল আমিন, পৌর কাউন্সিলর বাবুল মিয়াসহ মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের আরবী, বাংলা ও ইংরেজি লেখা প্রদর্শন, গজল, হামদ, নাত ও ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশনের পাশাপাশি প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকদের হাতের লেখাও প্রদর্শিত হয়। পরে অতিথিগণসহ সবাই দোয়া ও ইফতার মাহফিলে শরিক হন। এরপর অতিথিদের হাতে মাদ্রাসার তরফ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, শহরের উপকণ্ঠ দমদমা মহল্লায় মৃগী নদীর তীরে মনোরম পরিবেশে অবস্থিত এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে শেরপুর জেলায় প্রায় ৬ শতাধিক নূরানী মাদ্রাসার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। সেইসাথে প্রতিষ্ঠানেও পরিচালিত হচ্ছে নূরানী শিক্ষা কার্যক্রম।


মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি