নালিতাবাড়ীতে এবছর বোরো ধান রোপনে লক্ষ‍্যমাত্রা অতিক্রম করবে

নালিতাবাড়ীতে এবছর বোরো ধান রোপনে লক্ষ‍্যমাত্রা অতিক্রম করবে
সর্বমোট পঠিত : 114 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

এ বিষয়ে নালিতাবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীর এ প্রতিনিধিকে বলেন, এই উপজেলায় সরকারী ভাবে কৃষকদের নানা প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। চলতি বোর আবাদে লক্ষ‍্যমাত্রা অতিক্রম করবে বলে মনে হচ্ছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় বোর ধানের চারা রোপন ভাল হয়েছে। শেষ পর্যন্ত কোন রকম প্রাকৃতিক দূর্যোগ দেখা না দিলে উৎপাদন লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। আমরা কৃষকদের পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা করছি পাশাপাশি সরেজমিনে ঘুরে দেখছি।

আমিরুল ইসলাম, নালিতাবাড়ী:
শস্য ভান্ডার খ্যাত শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি বোর ধান আবাদে কৃষকরা ফসলের মাঠে ব‍্যস্ত সময় পারি দিচ্ছে।  কৃষিবিভাগ এ বছর ধান উৎপাদনের লক্ষ‍্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন। ধানের দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকদের  মাঝে ধান চাষে ব‍্যাপক আগ্রহ দেখা যাচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানাগেছে, নালিতাবাড়ী উপজেলায় চলতি বোর মৌসুমে ২২৭৫১ হেক্টর জমিতে নানা জাতের বোর ধান রোপন শেষের দিকে। অনেকে রোপিত ধান ক্ষেত পরিচর্যা শুরু করেছেন। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৭ শত ৭৬ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড, ৫ হাজার ৯ শত ৭৫ হেক্টর জমিতে উফশী জাতের বোর ধান রোপিত হয়েছে।

উপজেলার নন্নী পূর্ব পাড়া গ্রামের কৃষক জমশেদ আলী বলেন, তিনি এবারের বোর আবাদে ৪০ শতাংশ জমিতে দেশী-২৬ ও ১০০ শতাংশ জমিতে হাইব্রীড শক্তি-১ জাতের ধান লাগিয়েছেন। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন যদি সার সংকট সহ অন‍্য কোন সমস‍্যা না হয় তাহলে ভালো ফলন হতে পারে। বনকুড়া গ্রামের কৃষক আমিনুল ইসলাম বলেন, তিনি ২ একর ৫০ শতাংশ জমিতে মিতালী-৪ ও তেজ গোল্ড জাতের ধান লাগিয়েছেন। ধীরে-ধীরে ধানের চারা খুব ভাল ভাবে বেড়ে উঠছে।
এদিকে, বাইগড়পাড়া গ্রামের অপর কৃষক সাইদুল ইসলাম বলেন, তিনি দেড় একর জমিতে হাইব্রিড হীরা-১৯ ও মোটা জাতের ধানের চারা লাগিয়েছেন। তিনি আশা করেন ভালো ফলন ও দামের

এছাড়া উপজেলার বেশ কিছু উচু এলাকায় হাইব্রিড ও বিআর-২৮ সহ দেশী জাতের ধানের চারা রোপন করেছেন অনেকে। এসব ধানের ভাল ফলন পাবেন বলে কৃষকরা এসাংবাদিককে জানান।

এ বিষয়ে নালিতাবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর কবীর এ প্রতিনিধিকে বলেন, এই উপজেলায় সরকারী ভাবে কৃষকদের নানা প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। চলতি বোর আবাদে লক্ষ‍্যমাত্রা অতিক্রম করবে বলে মনে হচ্ছে।  আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় বোর ধানের চারা রোপন ভাল হয়েছে। শেষ পর্যন্ত কোন রকম প্রাকৃতিক দূর্যোগ দেখা না দিলে উৎপাদন লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। আমরা কৃষকদের পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা করছি পাশাপাশি সরেজমিনে ঘুরে দেখছি।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি