বিষধর সাপ খেলে সারে করোনা, গুজব ভারতে

বিষধর সাপ খেলে সারে করোনা, গুজব ভারতে
সর্বমোট পঠিত : 5 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

ভারতের তামিলনাড়ুতে এক ব্যক্তি বিষধর সাপ খাওয়ার পর সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছেড়েছেন। ভিডিওতে তিনি দাবি করেছেন, ‘সাপ খেলে করোনা সারে।’ পরে করোনা সারানোর গুজব ছড়ানোর অভিযোগে পুলিশ ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে জরিমানা করেছে। তামিলনাড়ুর বন বিভাগে কাজ করা ওই ব্যক্তির নাম ভাদিভেল। ৫০ বছর বয়সী ভাদিভেল একজন কৃষিবিদ।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার বরাতে এনডিটিভির খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে ভাদিভেল বিষধর সাপ খাওয়ার সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছাড়েন। সেখানে তাকে বলতে শোনা যায়, সাপ খেলে করোনা দূর হয়। ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে ভাদিভেলকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার করা হয়। ভাদিভেলের জন্ম তামিলনাড়ুর তিরুনেলভেলি জেলার পেরুমালপট্টি গ্রামে। পরিবেশবাদীরা ভাদিভেলের সেই ভিডিওটি পুলিশের নজরে আনলে তাকে গ্রেপ্তারের পর সাত হাজার রুপি জরিমানা করা হয়। 

ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়, ভাদিভেল সাপটি মাঠ থেকে ধরে এনে তা মারার পর খেয়েছেন। তবে মাদুরাই বন বিভাগের জেলা বন কর্মকর্তা এস আনন্দ বলেন, এ ঘটনায় তিনি অসন্তুষ্ট হয়েছেন। পাশাপাশি কিছু লোক তাকে সাপ খেতে অনুপ্রাণিত করেছেন। ভাগ্যক্রমে ভাদিভেল সাপ খাওয়ার সময় বিষাক্ত গ্রন্থিগুলো খাননি। ভারতীয় উপমহাদেশে এমন সাপ খুবই ভয়ংকর ও বিষধর হিসেবে পরিচিত। এই সাপের বিষে অতিরিক্ত পরিমাণে নিউরোটক্সিন থাকে। ফলে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা করাতে না পারলে নিশ্চিত মৃত্যু হতে পারে।

বন বিভাগ জানায়, পরে সাপটি মৃত অবস্থায় পাশের একটি নালায় পাওয়া যায়। যারা ভাদিভেলকে সাপ খেতে প্ররোচিত করেছিলেন, তারা তাকে করোনাভাইরাস নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিতেও উদ্বুদ্ধ করেন। ভারতে করোনা সংক্রমণ অতিরিক্ত মাত্রায় ছড়িয়ে পড়লে হাজার হাজার ভুল ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো হয় ভাইরাসটি সম্পর্কে। গোবর, গোমূত্র খেলে করোনা সারে- এমন তথ্য গ্রাম থেকে শহর, সবখানেই ছড়িয়ে পড়ে। দেশটির কিছু এমপি-মন্ত্রীও এমন ভুল তথ্য ছড়িয়েছেন। এসব ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে দেশটির সরকার।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি