মেঘনায় ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ

মেঘনায় ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ
সর্বমোট পঠিত : 28 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

আড়াইহাজার উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার বলেন, “বর্তমান এ সময়টা ইলিশ প্রজনন কাল। এসময়ে মা ইলিশ গোলা পাতিতে এসে বাচ্চা ছাড়েন। তাই সরকারি বিধি মেতাবেক, এসময়ে ইলিশ মাছ নিধন, পরিবহন ও বাজারজাত করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এই নিষেধ অমান্য করে কিছু জেলে মেঘনা নদীর বিশনন্দী, টেটিয়া, খাগকান্দা এলাকায় কারেন্ট জাল দিয়ে ইলিশ শিকার করছিল। খবর পেয়ে আমরা পরিদর্শনে আসি এবং এই সময় ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ১০ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়। পরে কারেন্ট জাল গুলো পুড়িয়ে ফেলা হয় এবং ইলিশ গুলো ইয়াতিম খানায় বিতরণ করা হয়।”

বর্তমান সময়টি হলো মা ইলিশ সুরক্ষা করে, দেশের মৎস্যখাতে ইলিশের সংখ্যা বৃদ্ধির সময়। কিন্তু কিছু অসাধু জেলের কারণে, সমুদ্র থেকে আসা মা ইলিশ নিরাপদে গোলা পানিতে এসে ডিম ছাড়তে পারছে না। ফলে, বিঘ্নত হচ্ছে বাচ্চা ফুটানোতে।

নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজারে মেঘনা নদীতে, ৬ অক্টোবর (বুধবার) সারাদিন অভিযান চালিয়ে ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করেছে উপজেলা মৎস্য অফিস। বুধবার দিনব্যাপী এই অভিযানের নেতৃত্বে দেন উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহমুুদা আক্তার।

মেঘনা নদীতে ইলিশ রক্ষায় অভিযানের সময় উপস্থিত ছিলেন – উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কামরুন্নার বেগম, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন। এসময় তাদের অভিযানে সহযোগিতা করেন খাগকান্দা নৌ পুলিশ ফাড়িঁর সদস্যরা।

আড়াইহাজার উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার বলেন, “বর্তমান এ সময়টা ইলিশ প্রজনন কাল। এসময়ে মা ইলিশ গোলা পাতিতে এসে বাচ্চা ছাড়েন। তাই সরকারি বিধি মেতাবেক, এসময়ে ইলিশ মাছ নিধন, পরিবহন ও বাজারজাত করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এই নিষেধ অমান্য করে কিছু জেলে মেঘনা নদীর বিশনন্দী, টেটিয়া, খাগকান্দা এলাকায় কারেন্ট জাল দিয়ে ইলিশ শিকার করছিল। খবর পেয়ে আমরা পরিদর্শনে আসি এবং এই সময় ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ১০ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়। পরে কারেন্ট জাল গুলো পুড়িয়ে ফেলা হয় এবং ইলিশ গুলো ইয়াতিম খানায় বিতরণ করা হয়।”

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি