যৌন হয়রানির শিকার

প্রাইভেট পড়তে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার

প্রাইভেট পড়তে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার
সর্বমোট পঠিত : 18 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে প্রাইভেট পড়ানোর সময় ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ওঠা ব্যক্তি উপজেলার একটি বেসরকারি স্কুলের শরীরচর্চা বিভাগের শিক্ষক। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে ওই ছাত্রীসহ তার সহপাঠীরা।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, ওই শিক্ষক ২০১৩ সালে বিদ্যালয়টিতে নিয়োগ পান। শরীরচর্চার শিক্ষক হলেও তিনি শিক্ষার্থীদের বাংলা বিষয়ে প্রাইভেট পড়াতেন। সম্প্রতি বিদ্যালয়সংলগ্ন একটি বাড়িতে দুটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানো শুরু করেন।


তারা আরও জানান, ২৫ ফেব্রুয়ারি প্রাইভেট পড়ানোর সময়ে এক ছাত্রীর স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন ওই শিক্ষক। ওই ছাত্রী বাধা দিলেও তিনি হাত দেয়ার চেষ্টা করেন। এক শিক্ষার্থী বিষয়টি টের পেয়ে গোপনে এটি ভিডিও করে। এর পরদিন প্রধান শিক্ষকের কাছে অভিযোগ দেয় শিক্ষার্থীরা।


বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক আবুল হোসেন জানান, ওই ঘটনায় প্রধান শিক্ষক তাকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্তে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি পর্যবেক্ষণ এবং অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে তারা ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন।


তবে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন শরীরচর্চার বিভাগের ওই শিক্ষক। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি এখন কিছু বলব না। বিষয়টির ব্যাপারে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আমি সময় চেয়েছি।’


স্কুলের প্রধান শিক্ষক আহম্মদ আলী জানান, বিষয়টি নিয়ে তারা ২৭ ফেব্রুয়ারি বৈঠক করেন। সেখানে ওই শিক্ষককে বিষয়টি নিয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি অস্বীকার করেন। পরে ভিডিওটি দেখালে তিনি চুপ হয়ে যান।


স্কুল থেকে অব্যাহতি নেয়ার জন্য ওই শিক্ষক লিখিত চিঠিতে এক মাস সময় চেয়েছেন বলে জানিয়েছেন প্রধান শিক্ষক।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি