মুখে মাস্কের ছবি

মুখে মাস্কের ছবি এঁকে ধোঁকা: ফাঁসলেন রুশ তরুণী

মুখে মাস্কের ছবি এঁকে ধোঁকা: ফাঁসলেন রুশ তরুণী
সর্বমোট পঠিত : 20 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

ইন্দোনেশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন দ্বীপ বালিতে এক বিদেশি তরুণী মজার ছলে সুপারমার্কেটে প্রবেশ করেছিলেন মাস্কের আদলে মুখে রং মেখে। সঙ্গে থাকা তার বন্ধুর ধারণ করা মোবাইল ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে ওঠে সমালোচনার ঝড়। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হবে বলে জানিয়েছে ইন্দোনেশীয় কর্তৃপক্ষ।

ভাইস ওয়ার্ল্ড নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, তাইওয়ানিজ-আমেরিকান তরুণ জোস প্যালের লিন ও রুশ তরুণী লিয়া সি ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউবে একটি ভিডিও আপলোড করেন।


ভিডিওটিতে দেখা যায়, লিয়া সির মুখে শুরুতে কোনো মাস্ক ছিল না। এ কারণে তিনি একটি সুপারমার্কেটে ঢুকতে ব্যর্থ হন।


তবে এরপর সার্জিক্যাল মাস্কের আদলে নাক থেকে চিবুক পর্যন্ত হালকা নীল রঙ করে সুপারমার্কেটে ঢোকেন লিয়া সি। বিষয়টি কারও চোখে ধরা পড়ছে কিনা, মজা করে সেটাই যাচাই করতে চেয়েছিলেন তিনি ও তার বন্ধু।


সুপারশপে প্রবেশের পর তাদের ধারণকৃত ভিডিওতে দেখা যায়, ধোঁকা দেয়ার বিষয়টি নিয়ে বেশ হাসাহাসি করছেন তারা।


ভিডিওতে লিন মজা করে হাঁটতে হাঁটতে বলেন, ‘তুমি কি খেয়াল করেছ যে তোমাকে কেউ আলাদাভাবে খেয়াল করছে না?’


উত্তরে সি বলেন, ‘একদম আসল মাস্কের মতো করেই মাস্ক এঁকেছি যে!’


প্রতিক্রিয়ায় লিন বলেন, ‘কেউ বোঝেনি যে এটা আসল মাস্ক নয়। এমনকি নিরাপত্তারক্ষীরাও। অবিশ্বাস্য ঘটনা!’


ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যখন করোনাভাইরাস মহামারিতে বিপর্যস্ত, তখন স্বাভাবিকভাবেই এমন মজা ভালোভাবে নেননি বেশিরভাগ মানুষ।


তুমুল বিতর্কের মুখে ইউটিউব থেকে ভিডিও ক্লিপটি মুছে দিয়েছেন লিন ও সি। তবে এর পরেও বিতর্ক পিছু ছাড়েনি তাদের।


ছোঁয়াচে ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে নির্দেশি স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করায় এই দুই সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সারের পাসপোর্ট জব্দ করেছে ইন্দোনেশিয়ার অভিবাসন কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি নিয়ে তদন্তও শুরু হয়েছে।


এ ঘটনায় বালির এক কর্মকর্তা বলেন, ‘নিজ দেশের বা বিদেশি- কোনো ব্যক্তির কাছ থেকেই এ ধরনের বেপরোয়া আচরণ প্রত্যাশিত নয়। জনস্বাস্থ্য ও অন্যদের সুরক্ষার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ যে কাউকে প্রয়োজনে দেশ ছাড়ার নির্দেশ দেবে কর্তৃপক্ষ। এ ধরনের ব্যবস্থা আগেও নিয়েছি আমরা। প্রয়োজনে ভবিষ্যতেও নেব।’


বিষয়টি নিয়ে ছবি ও সংক্ষিপ্ত ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্ট করেছেন লিন ও সি। মানুষের তীব্র প্রতিক্রিয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তারা দুজনেই ক্ষমা চেয়েছেন।


লিন জানান, তিনি একজন কনটেন্ট ক্রিয়েটর। এ ধরনের কনটেন্ট তৈরি করে মানুষকে বিনোদন দেয়াই তার কাজ।


আরেকটি ভিডিও পোস্ট করে তিনি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারিনি যে বিষয়টি এতোটা নেতিবাচক মন্তব্য উস্কে দেবে। আমরা ক্ষমা চেয়েছি। প্রতিজ্ঞা করছি যে ভবিষ্যতে আর এমন করব না। বরং মাস্ক পরায় উৎসাহিত করছি।’


তবে এতেও নমনীয় হয়নি ইন্দোনেশীয় প্রশাসন। দেশটির এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যাদের কাছে মজার বিষয়, তাদের কোনো ছাড় দেয়া হবে না।


এখন পর্যন্ত ইন্দোনেশিয়ায় ১৬ লাখের বেশি মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৪৫ হাজার ৫২১ জনের।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি