সিলেট-৩ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে

সিলেট-৩ আসনে ভোটগ্রহণ
সর্বমোট পঠিত : 49 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

গত ১১ মার্চ আওয়ামী লীগের মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এমপি করোনা মারা গেলে সিলেট-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। সংবিধান অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন আয়োজনের কথা থাকলেও দৈব দূর্বিপাকে আরও ৯০ দিন সময় হাতে পায়। করোনার জন্য তিন দফা পেছানোর পর উচ্চ আদালতের নির্দেশে শনিবার এই আসনে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে।

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জের একাংশ নিয়ে গঠিত এই সংসদীয় আসনের ১৪৯টি কেন্দ্রে শনিবার সকাল ৮টায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে।

সকালে ভোটগ্রহণ শুরুর পর দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, ভোটার উপস্থিতি খুবই কম। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। তিন উপজেলায় তিনজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটও রয়েছেন।

রিটার্নিং অফিসার সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম জানান, শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা - ইউসুফ আলী

এই আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান হাবিব (নৌকা প্রতীক), জাতীয় পার্টির আতিকুর রহমান আতিক (লাঙ্গল প্রতীক), বিএনপির বিদ্রোহী ‘স্বতন্ত্র’ প্রার্থী শফি আহমদ চৌধুরী (মোটরগাড়ি প্রতীক) ও বাংলাদেশ কংগ্রেসের জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া (ডাব)। সকালে প্রার্থীরা নিজ নিজ কেন্দ্রে ভোট দিয়ে বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছেন।

গত ১১ মার্চ আওয়ামী লীগের মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এমপি করোনা মারা গেলে সিলেট-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। সংবিধান অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন আয়োজনের কথা থাকলেও দৈব দূর্বিপাকে আরও ৯০ দিন সময় হাতে পায়। করোনার জন্য তিন দফা পেছানোর পর উচ্চ আদালতের নির্দেশে শনিবার এই আসনে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি