গাইবান্ধায় নিখোঁজের দুইদিন পর যমুনা নদী লাশ উদ্ধার-২

সর্বমোট পঠিত : 33 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি মুঠোফোনে প্রতিবদেককে নিশ্চিত করেছেন ফুলছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) সাইদুর রহমান বলেন,শুক্রবার সকালে স্থানীয়দের খবরে গজারিয়া ইউনিয়নের যমুনা নদীর গলনার চর ও বাইনকার চর নামক স্থানে নদীতে ভাসমান অবস্থায় নিখোঁজ ফারুক ও সোনা মিয়া নামের দুই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।


গাইবান্ধায় নিখোঁজের দুই দিন পর ফুলছড়ির যমুনা নদী থেকে ফারুক হোসেন (৫০) ও সোনা মিয়া (৫৫) নামের দুই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২৮ জুন)সকাল ১১টার দিকে উপজেলার পুরাতন ফুলছড়ির গজারিয়া ইউনিয়নের যমুনা নদীর গলনারচর ও বাইনকার চর নাম স্থান থেকে পানিতে ভাসমান অবস্থায় তাদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এরআগে গত ২৬ জুন (বুধবার) রাতে নিখোঁজ হন তারা।তাদের মধ্যে ফারুক হেসেন দক্ষিণ উদখালি গ্রামের মৃত নজলার রহমানের ছেলে এবং সোনা মিয়া কাতলামারি তিন নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার রাতে উপজেলার কালিরক্যাশ নামক চরে জুয়া খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয় ফারুক ও সোনা মিয়া। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাদের পায়নি পরিবার। শুক্রবার সকালে তাদের মরদেহ নদীতে ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা।

মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি মুঠোফোনে প্রতিবদেককে নিশ্চিত করেছেন ফুলছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) সাইদুর রহমান বলেন,শুক্রবার সকালে স্থানীয়দের খবরে গজারিয়া ইউনিয়নের যমুনা নদীর গলনার চর ও বাইনকার চর নামক স্থানে নদীতে ভাসমান অবস্থায় নিখোঁজ ফারুক ও সোনা মিয়া নামের দুই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন,জানা গেছে তাঁরা পেশাদার জুয়াড়ু। মাত্র উদ্ধার করা হলো। সুরতহাল রিপোর্ট,পরিবার ও স্থানীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ এবং পারিপার্শক তদন্ত শেষে ঠিক কী কারণে ঘটনা ঘটেছে তা জানা যাবে। এখুনি কিছু বলা যাচ্ছেনা।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি