মহাকাশযাত্রায় আমিরাতের প্রথম নারী

মহাকাশযাত্রায় আমিরাতের প্রথম নারী
সর্বমোট পঠিত : 19 বার
জুম ইন জুম আউট পরে পড়ুন প্রিন্ট

সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম নারী নভোচারী হতে যাচ্ছেন নূরা আল-মাতরুশি। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার প্রশিক্ষণ নেবেন তিনি। ১৯৯৩ সালে জন্ম নেয়া মাতরুশি সংযুক্ত আরব আমিরাত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কারিগরি প্রকৌশলবিদ্যায় স্নাতক সম্পন্ন করেছেন। দেশটির ন্যাশনাল পেট্রোলিয়াম কনস্ট্রাকশন কোম্পানিতে প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত এই নারী; টানা তিন বছর ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির ইয়ুথ কাউন্সিলের ভাইস প্রেসিডেন্ট।

আমেরিকান সোসাইটি অফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার্সের সদস্য মাতরুশি স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে বিজ্ঞানের নানা খাতের সঙ্গে জড়িত। ২০১১ সালের আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে প্রথম স্থান অর্জন করেন তিনি। বার্তা সংস্থা এপি জানিয়েছে, মহাকাশে আরব আমিরাতের ভবিষ্যৎ দুই অভিযাত্রীকের নাম ঘোষণা করা হয় শনিবার। এ তালিকায় মাতরুশির পুরুষ সহকর্মী মোহাম্মদ আল-মোল্লা।


নিজ দেশের মহাকাশ অভিযানে অংশ নিতে যাওয়া এই দুই মহাকাশচারীর নাম জানান দুবাইয়ের শাসক, আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী ও ভাইস প্রেসিডেন্ট শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাখতুম।


টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় জানানো হয়, মাতরুশি ও মোল্লাকে টেক্সাসের হিউস্টনে নাসার জনসন স্পেস সেন্টারে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হবে।


জানা গেছে, আরব আমিরাতের এ অভিযানে অংশ নিতে দুবাই-আবুধাবিসহ সাতটি অঞ্চল থেকে আবেদন করেছিলেন প্রায় সাড়ে চার হাজার মানুষ। তাদের মধ্য থেকেই মাতরুশি ও মোল্লাকে বেছে নেয় দুবাই।


২০১৯ সালে আরব আমিরাতের প্রথম নভোচারী হিসেবে মহাকাশে পৌঁছান হাজ্জা আল মনসুরি। আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে আটদিন থেকে পৃথিবীতে ফিরে আসেন তিনি।


সম্প্রতি মহাকাশ গবেষণায় ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। প্রথম আরব রাষ্ট্র হিসেবে ফেব্রুয়ারিতে মঙ্গলের কক্ষপথে ‘আমল’ নামের একটি কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠায় দেশটি। ২০২৪ সালে চাঁদে মানববিহীন মহাকাশযান পাঠানোর পাশাপাশি, দেশটির উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনার তালিকায় আরও আছে- ২১১৭ সালে মঙ্গলে মানব বসতি গড়ে তোলার।

মন্তব্য

আরও দেখুন

নতুন যুগ টিভি