সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনার পর কক্সবাজারে কমছে পর্যটক


নিউজ ডেস্ক:
করোনার সংক্রমণ রোধে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনা জারির পর কক্সবাজারে পর্যটকদের আগমন কমতে শুরু করেছে।

হোটেল-মোটেলে থাকার জন্য যারা রুম বুকিং দিয়েছিলেন, তা বাতিল হওয়া শুরু হয়েছে। পাশাপাশি সমুদ্র সৈকতসহ বিনোদনকেন্দ্রে কমে গেছে পর্যটকদের ভিড়। এদিকে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

করোনার পরিস্থিতির মধ্যেও প্রতিদিন কক্সবাজারে বেড়াতে আসতেন অসংখ্য পর্যটক। সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে প্রশাসন তৎপর থাকলেও অনীহা দেখা গিয়েছিল পর্যটকদের মাঝে।

সম্প্রতি হঠাৎ করেই সারাদেশে ফের করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। পর্যটন ও রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংশ্লিষ্ট দেশি-বিদেশি মানুষের আনাগোনায় কক্সবাজারেও আক্রান্তের হার ঊর্ধ্বমুখী। তবে, করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৮টি নির্দেশনা জারির পর নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। ফলে সৈকতে আসা পর্টকদের মধ্যে মাস্ক ব্যবহার বাড়তে শুরু করেছে।

পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা জানালেন, টানা কয়েক মাস লকডাউনের পর ব্যবসা যখন ঘুরে দাঁড়াচ্ছিল তখনই এলো নতুন নির্দেশনা। এরইমধ্যে কক্সবাজারে হোটেল-মোটেলের আগাম বুকিং বাতিল হয়ে গেছে। এখন হোটেল-মোটেলের ৮০ ভাগ কক্ষ খালি রয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জাহিদ ইকবাল জানালেন, পর্যটন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে ধারণ ক্ষমতার ৫০ ভাগের বেশি মানুষের সমাগম না করা এবং মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত নামানো হয়েছে।

কক্সবাজারে ফেব্রুয়ারি মাসে পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ছিল ৬ থেকে ৭ শতাংশ। মার্চে তা বেড়ে হয়েছে ১০ ভাগের বেশি।

Top
ঘোষনাঃ