বসন্ত এসে গেছে- আবদুল আলীম তালুকদার

     

      বসন্ত এসে গেছে
আবদুল আলীম তালুকদার

শিমুল পলাশের লাল টুকটুকে আগুন লাগা রঙ
প্রকৃতিকে যখন আপন মনে রাঙিয়ে তোলে
তখন বুলবুল টিয়ে শালিক বসন্ত বাউরিকে
পুষ্প শাখেব সে আপন মনে
মউ পান করতে দেখলে
তখন আর কারও বুঝতে বাকি থাকে না
ঋতুরাজ বসন্ত এসে গেছে।

মধুকর আর ভ্রমরের অসংলগ্ন ঘোরাঘুরি
আর মোহিনী গুঞ্জরণ তোলে ফুল ও ফুলে
উড়া উড়ি করতে দেখলে
সত্যিই আর বুঝতে বাকি থাকে না
বসন্ত এসে গেছে।

শীতের রুক্ষতা কাটিয়ে নীলা ম্বরীর কোলে
শ্বেত শুভ্র জলদের আনা গোনা দেখলে
কারও আর বুঝতে বাকি থাকার কথা না
বসন্ত এসে গেছে।

ধূসরকুয়াশাসরিয়ে দূরদিগন্তজুড়ে
ঝলমলে সোনা রোদের খেলা দেখলে
বুঝতে আর বাকি থাকে না
বসন্ত এসে গেছে।

বাতায়ন পাশের পুষ্প কুঞ্জে
ডালিয়া চন্দ্রমল্লিকা মাধবীলতার
ঝিলিক দেয়া হাসি দেখলে
বুঝতে আর বাকি থাকে না
বসন্ত এসে গেছে।

গাছে-গাছে কচি সবুজ পাতা আর
আম জাম লিচুর প্রস্ফুটিত মুকুলের
পাগল করা মৌ মৌ গন্ধ নাকে এলেই
বুঝতে আর বাকি থাকে না
বসন্ত এসে গেছে।

উদাস মধ্যাহ্নে বসন্ত দূত কোকিলের
মুগ্ধ তাছড়া নোকুহুতানে
প্রেমিক চিত্ত যখন প্রিয়তম’রবি হনে
আকুলি বিকুলি করে
তখন বুঝতে আর বাকি থাকে না
ঋতুরাজ বসন্ত এসে গেছে।

ভর দুপুরের ঝরা পাতার মর্মর ধ্বনি
যখন হৃদয় পটে শিহরণ জাগায় আর
চৈত্রের বাউড়ি বাওয়ের ঝড়ো ছোঁয়ায়
উদ্ভট উৎকট বাসী ভাবনা গুলোকে
এক নিমেষেই উলটপালট করে দেয়
তখন বুঝতে আর বাকি থাকে না
ঋতু রাজ বসন্ত এসে গেছে।

Top
ঘোষনাঃ