হাতির পিঠে চড়ে বিয়ের আসরে সম্রাট, অবশেষে পালিয়ে রক্ষা!


নিউজ ডেস্ক:
বরের নাম সম্রাট। তাই সার্কাসের হাতি ভাড়া করে তাতে সম্রাটের মতো চড়ে বিয়ে করতে এসেছিলেন। কিন্তু কনের বয়স কম। এ খবর পেয়ে পুলিশ রওনা দেন ঘটনাস্থলের দিকে। আর পুলিশ আসার খবর পেয়ে কোনো রকমে বিয়ের কাজ শেষ করে সবাই চম্পট দেন। শেষ পর্যন্ত ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ দেখে বাড়ি জনশূন্য।

শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙামোড় ইউনিয়নের আটিয়াবাড়ী গ্রামে এই ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন ভাঙামোড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু।

কনের ভগ্নিপতি হাফিজুল ইসলাম জানান, পার্শ্ববর্তী নাগেশ্বরী উপজেলার নেওয়াশী এলাকার বদ্ধু খানের পুত্র সম্রাট (২২) এর সঙ্গে ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙামোড় ইউনিয়নের আটিয়াবাড়ী এলাকার দুলাল মিয়ার ১৬ বছর বয়সী কন্যা ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী আদুরী আক্তারের বিয়ে ঠিক হয়।

এ অবস্থায় ফুলবাড়ী বড়ভিটা কলেজ মাঠে লায়ন সার্কাসের প্রদর্শনীর একটি হাতি ১৫ হাজার টাকায় ভাড়া করা হয়। সেই হাতিতে চড়ে বর নেওয়াশী থেকে রওনা দেয় কনের বাড়ির উদ্দেশে। পথে হাতির পিঠে বর দেখে উৎসুক মানুষের ভিড় জমে ওঠে। খবরটি দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

ভাঙামোড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু জানান, হাতির পিঠে চড়ে বর আসার কথা শুনে তার মধ্যেও কৌতূহলের সৃষ্টি হয়। সেই কৌতূহল থেকে জানতে পারেন কনের বয়স কম। বিষয়টি নিশ্চিত হতে, গ্রাম পুলিশ সফিকুলকে কনের বাড়িতে পাঠান। তখন খবর আসে এটি বাল্যবিয়ে।

এরপর তিনি ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুর রহমানকে অবহিত করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যেতে পুলিশকে নির্দেশনা দেন। কিন্তু বিয়েবাড়িতে পুলিশ গিয়ে কাউকে পায়নি বলে জানান ফুলবাড়ী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সারোয়ার পারভেজ। বলেন, তারা আগেই বিয়ে শেষ করে সটকে পড়েছে।

এ বিষয়ে শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) মোবাইল ফোনে ফুলবাড়ীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, ঘটনাটি খতিয়ে দেখে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Top
ঘোষনাঃ