রাস্তায় সন্তান প্রসব, ভবঘুরে নারীর পাশে পুলিশ

নিউজ ডেস্ক:
রাজধানীর জুরাইন রেলগেট রাস্তায় এক ভবঘুরে নারী কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। রেল লাইনের ওপরে রক্তাক্ত নারী সন্তান প্রসব করেছে এবং সন্তানের নাভি কাটা হয়নি এমন সংবাদ পায় শ্যামপুর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) জামাল হোসেন। পরে নিকটস্থ ক্লিনিক থেকে নার্স এনে ওই প্রসূতি ও সন্তানকে আলাদা করার ব্যবস্থা করা হয়।

শ্যামপুর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো: জামাল হোসেন জানান, খবর পেয়ে বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টার দিকে জুরাইন রেলগেট ওভারব্রিজের নিচে থেকে ভবঘুরে (পাগলী) ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়। সে রাস্তাতেই একটি মেয়ে সন্তান প্রসব করে। সঙ্গে সঙ্গে ওই নারীকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয় ওই নারীকে। আর বাচ্চাটিকে নবজাতক বিভাগে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও জানান, স্থানীয় লোকজনের কাছে জানতে পেরেছি জুরাইন রেলগেট এলাকায় ঘুরে বেড়াতো ওই নারী। তার নাম পরিচয়ও কেউ কিছু বলতে পারছে না। এমনকি সে নিজেও কিছুই বলতে পারে না। রাস্তায় ঘুমাতো, কেউ কিছু দিলে তাই খেতো। আজ সকালে জুরাইন রেলগেট ওভারব্রিজের নিচে মেয়ে বাচ্চা প্রসব করে সে।

পরে একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে ওই নারী ও তার সন্তানকে ঢাকা মেডিকেলে নেয়ার ব্যবস্থা করে পুলিশ। হাসপাতালে নেয়ার পর মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারী ও তার সন্তানকে আলাদা আলাদা ওয়ার্ডে ভর্তি নেয়া হয়।

চিকিৎসকরা জানান, জরুরি ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন। তখন পরিদর্শক জামাল হোসেন ঘটনাটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জানালে তিনি রক্ত দেয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেন। তার আগেই অন্য একজন তাকে রক্ত দেন।

এ বিষয়ে শ্যামপুর থানার পরিদর্শক জামাল হোসেন জানান, বাচ্চাটিকে কোলে নিয়ে হাসপাতালে আমি ভর্তির ব্যবস্থা করি। পাশাপাশি তার মা ও তার জন্য নতুন কাপড় কিনে দেই।

নবজাতকটি সুস্থ থাকলেও প্রসূতির রক্ত শূন্যতার কথা জানান চিকিৎসকরা। ইতোমধ্যে নবজাতককে দত্তক নিতে বেশ কয়েকজন পুলিশের কাছে ফোন দিয়েছেন বলেও জানান জামাল হোসেন।

ঢামেক হাসপাতালের নবজাতক বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক মনহেন্দ্র ঘোষ জানান, নবজাতককে বুধবার সকালে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার ওজন প্রায় আড়াই কেজি।

Top
ঘোষনাঃ